ই-পেপার সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২
সদস্য হোন |  আমাদের জানুন |  পডকাস্ট |  গুগলী |  ডিসকাউন্ট শপ
বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ বৈশাখ ১৪৩১
বাবার সামনেই আমায় বেডরুম থেকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয় স্বামী, তারপর…
নতুন সময় ডেস্ক
প্রকাশ: Thursday, 16 February, 2023, 12:44 PM
সর্বশেষ আপডেট: Thursday, 16 February, 2023, 1:26 PM

বাবার সামনেই আমায় বেডরুম থেকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয় স্বামী, তারপর…

বাবার সামনেই আমায় বেডরুম থেকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয় স্বামী, তারপর…

প্রশ্ন: আমি একজন বিবাহিত মহিলা। প্রায় সব বিবাহিত মহিলার মতোই আমার জীবনটাও বিয়ের পর বদলে যায়। আমি ভাবতাম সময়ের সঙ্গে সঙ্গে হয়তো সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু কোনও কিছু ঠিক হয়নি। বরং দিনের পর দিন পরিস্থিতি আরও জটিল হয়েছে। আমাদের সম্বন্ধ করে বিয়ে হয়েছিল। আমার বাবা ও মায়ের বেছে দেওয়া পাত্রকেই বিয়ে করেছিলাম আমি।

তিন বছর একসঙ্গে কাটিয়েছি। কিন্তু স্বামী-স্ত্রীর মতো সম্পর্কই আমাদের মধ্য়ে গড়ে ওঠেনি। আমাদের মধ্য়ে সেই বাঁধনটাই নেই। আমার স্বামী ঠিক করে কথা বলে না। উলটে খুব খারাপ ব্যবহার করে। আমি ওকে বদলানোর অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু ও আমার জন্যে নিজেকে বদলাতে পারল না। আজ বাধ্য হয়েই আমি সব কথা বিশেষজ্ঞের কাছে লিখে পাঠাচ্ছি। আমি সব বলছি। আমার কথাগুলো অনুগ্রহ করে মন দিয়ে পড়ুন। (প্রবন্ধে ব্যবহৃত সব ছবি প্রতীকী, সৌজন্য - istock)
ছোট ছোট বিষয়ে নিয়ে অশান্তি শুরু হয়

ছোট ছোট বিষয়ে নিয়ে অশান্তি শুরু হয়

আমার স্বামীর ওজন প্রায় ৮৯ কেজি। আমি ওকে ওজন কমাতে বলেছিলাম। এখান থেকেই আমাদের মধ্য়ে ঝামেলা শুরু হয়। ওর ওজন নিয়ে আমাদের মধ্য়ে খুব বেশি সমস্যা ছিল না। কিন্তু ঝগড়া হতে হতে আমাদের ব্যক্তিগত জীবনেও এর প্রভাব পড়তে শুরু করে। আমি একা হাতেই সব কিছু সামলাই। কারও থেকে কোনও সাহায্য পাই না।

এর মধ্য়ে একদিন আমার শাশুড়ি মা আসে এই বাড়িতে। সে আসার পর থেকেই আমাদের মধ্য়ে ঝামেলা আরও বাড়তে থাকে। শাশুড়ি উঠতে বসতে আমার সঙ্গে অশান্তি শুরু করে। স্বামী আমার পক্ষ তো নেয়ই না। উলটে শুধুই শাশুড়ির দোষ ঢাকতে শুরু করে।

কতবার ফোন করেছি!

ছোট ছোট বিষয় নিয়ে আমাদের মধ্য়ে অশান্তি শুরু হয়ে যায়। একদিন আমাদের মধ্য়ে ঝগড়া চরমে ওঠে। আমার স্বামী জোর করে আমায় বাড়ি থেকে বের করে দেয় এবং বাবা-মায়ের কাছে যেতে বাধ্য করে। এই সময়ে আমি ওকে অনেকবার ফোন করি। কিন্তু আমার একটা ফোনও ও ধরেনি। এরপর আমার বাবা আমায় এই বাড়িতে ফিরিয়ে দিতে আসে। আমার স্বামী কিছু বলেনি।

বাবার সামনেই আমায় বেডরুম থেকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়। আমার বাবাও সেদিন আমার হয়ে একটা কথা বলেনি। এরপরেও পরিস্থিতি আরও কঠিন হতে শুরু করে। আমার স্বামী এরপর আমায় আরও অপমান করতে শুরু করে। এসব কিছু আর মেনে নেওয়া সম্ভব হচ্ছিল না। বাধ্য হয়ে আমি পুলিশে অভিযোগ দায়ের করি। আইনি প্রক্রিয়া এখনও শুরু হয়নি। আমার বাবা-মা আমার পাশেই আছে। আমি জানি না, ঠিক করলাম নাকি ভুল?

বিশেষজ্ঞের পরামর্শ

পরামর্শ দিচ্ছেন রিলেশনশিপ কোচ বিশাল ভরদ্বাজ। স্বামী-স্ত্রীর মধ্য়ে সম্পর্ক খারাপ হতে হতে একসময় এরকম জায়গায় এসেই দাঁড়ায়। ধৈর্য্য ধরে অপেক্ষা করতে করতেই শেষে মানুষ এরকম একটি সিদ্ধান্ত নেন। কোনও সম্পর্কে দমবন্ধকর পরিস্থিতিতে পড়ে কষ্ট পাওয়ার থেকে তার থেকে বেরিয়ে আসাই ভালো বলে আমার মনে হয়।

কিন্তু সেরকম বড় একটি সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বারবার ভাবা উচিত বলেই মনে হয়।

বন্ধুত্ব কেন গড়ে ওঠেনি?

প্রচণ্ড রাগে মানুষ ভুল সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। যদি একজন সঙ্গী রাগের বশে সঠিক সিদ্ধান্ত না নিতে পারেন, তাহলে পাশের জনকে শান্ত থাকতে হয়। যখন দুজনেরই ধৈর্য্যচ্যুতি ঘটে, সেই সময়ে সম্পর্কেও তার প্রভাব পড়ে। এই সময়ে বাবা-মাও যদি হস্তক্ষেপ করেন, তবে তা আরও খারাপ হতে পারে। তখন তাঁরা নিজের সন্তানের ভুল দেখতে পারেন না। কিন্তু সম্পর্ক ভাঙার পরে তাঁরাই আপনাকে দায়ি করেন।

আপনি আমায় জানালেন যে, বিয়ের এত বছর পরেও যেন আপনাদের মধ্য়ে কোনও ভালোবাসার বন্ধন গড়ে ওঠেনি। আমি আপনার কাছে জানতে চাই, আপনাদের মধ্যে কি বন্ধুত্ব আছে? এত বছরেও আপনাদের মধ্য়ে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠেনি কেন? বন্ধুত্ব না গড়ে উঠলে ভালোবাসা গড়ে উঠবে কী ভাবে? তা কি কখনও ভেবে দেখেছেন?

আর একবার চেষ্টা করতে পারেন?

এই পরিস্থিতিতে আপনাদের মধ্য়ে সম্পর্কের বন্ধন আরও মজবুত হওয়া প্রয়োজন। আপনার স্বামীর পরিবারেও কিছু সমস্যা আছে। তাঁরা হয়তো ইচ্ছে করেই আপনাদের মধ্য়ে দূরত্ব তৈরি করার চেষ্টা করছেন।

আপনি জানালেন, এখন নিজের বাবা মায়ের বাড়িতে আছেন। সেখানেই থাকুন। আইনি প্রক্রিয়া শুরু যখন হয়নি, তখন আপনার হাতে আরও এতটু সময় আছে। সেই পথে হয়তো আর না এগোতেও পারেন। আপনার স্বামীর রাগ কমা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। হয়তো তিনি আপনার সঙ্গে কথা বলবেন। কোনও থেরাপিস্টের সাহায্য নিন। নিজেদের মধ্য়ে সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করুন। তাড়াহুড়োয় কোনও সিদ্ধান্ত নেবেন না।

পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, গ্রীন ট্রেড পয়েন্ট, ৭ বীর উত্তম এ কে খন্দকার রোড, মহাখালী বা/এ, ঢাকা ১২১২।
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: info@notunshomoy.com
কপিরাইট © দৈনিক নতুন সময় সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft
DMCA.com Protection Status