ই-পেপার সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২
সদস্য হোন |  আমাদের জানুন |  পডকাস্ট |  গুগলী |  ডিসকাউন্ট শপ
সোমবার ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ ১৬ মাঘ ১৪২৯
বাহাদুর শাহ পার্ক বাঁচাও
আবদুল হাই শিকদার
প্রকাশ: Sunday, 22 January, 2023, 1:03 PM

আবদুল হাই শিকদার

আবদুল হাই শিকদার

যে বছর আমার মর্ত্যধামে আগমন , সেই ১৯৫৭ সালে সর্বস্তরের শিল্প সাহিত্য ইতিহাস ও সাংস্কৃতিক নেতাকর্মীদের দাবীর মুখে , ১৮৫৭ সালের উপমহাদেশের প্রথম সর্বাত্মক স্বাধীনতা যুদ্ধের ( সিপাহী বিদ্রোহ ) বীর শহীদদের স্মরণে প্রতিষ্ঠিত হয় “ বাহাদুর শাহ পার্ক ”। শেষ মুঘল সম্রাট বাহাদুর শাহ জাফর ছিলেন এই স্বাধীনতা যুদ্ধের কেন্দ্রীয় ব্যক্তিত্ব বা প্রতীক।

এই বাহাদুর পার্কে গিয়ে শহীদদের সম্মানে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন শেরে বাঙলা, শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মওলানা ভাসানী, আতাউর রহমান খান, আবু হোসেন সরকার, শেখ মুজিবুর রহমান সহ কত ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব।

বাহাদুর শাহ পার্কের আদি নাম ছিল আন্টাঘর ময়দান ।এই ময়দানে লালবাগ দুর্গের শত শত হিন্দু মুসলিম বীর সিপাহীদের ধরে এনে, নির্মম অত্যাচার করে, গাছে গাছে ঝুলিয়ে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করেছে ঔপনিবেশিক ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ ।মাসের পর মাস সিপাহীদের লাশ গাছেই ঝুলে থাকতো। ইংরেজদের দম্ভ ও নৃশংসতার ভয়ে সাধারণ মানুষ এর ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারতো না।

বাহাদুর শাহ পার্ক বাঁচাও

বাহাদুর শাহ পার্ক বাঁচাও

পরে নিজেদের বীরত্ব জাহিরের হীন প্রয়াস থেকে ইংরেজরা এর নাম দেয় মহারানী ভিক্টোরিয়া পার্ক। ১৯৪৭ এ ব্রিটিশ শাসনের অবসান ঘটে। মানুষের মাঝে ফিরে আসে সচেতনতা।
যে পার্কের প্রতিটি ধূলিকণায় মিশে আছে বীর শহীদের রক্ত, দেশপ্রেমিকদের অপরিসীম আত্মত্যাগের মর্মস্তুদ কাহিনী, মিশে আছে আমাদের মহান পূর্বপুরুষের অস্থি, সেই পার্কের নাম সাম্রাজ্যবাদের এক রানীর নামে হয় কি করে?

শুরু হয় আন্দোলন। সেই আন্দোলনেরই ফসল আজকের বাহাদুর শাহ পার্ক। কিন্তু বাংলাদেশের ভাগ্যাকাশের দুর্যোগের মেঘ অপসারিত হলো না। সাম্রাজ্যবাদ, উপনিবেশবাদ সরে গেল বটে, রয়ে গেল আধিপত্যবাদের দালাল, পাইক, পেয়াদা, বরকন্দাজ, চামচা, চামুন্ডা, মোসাহেব, ভন্ড, প্রতারক, দেশপ্রমের মুখোশ পড়া আত্মঘাতী হিংস্র নেকড়ের দল। তাদেরই জিঘাংসা ও লালসার ইতর হামলায় কম্পমান বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অস্তিত্ব। 

বাহাদুর শাহ পার্ক বাঁচাও

বাহাদুর শাহ পার্ক বাঁচাও

দেশের পুলিশ, প্রশাসন, বিচারব্যবস্থা, শিক্ষা, শিল্প, সংস্কৃতি, সমাজ সব কিছু এখন অস্তাচলগামী। এই হিতাহিতবোধ বর্জিত ক্রর হামলার সর্বশেষ শিকার বাহাদুর শাহ পার্ক। আমাদের জাতীয় ইতিহাসের অনন্য গৌরবগাঁথা বাহাদুর শাহ পার্ককে এভাবে ধ্বংস হতে দেয়া যায় না।

দল মত পথ ধর্মের উর্ধে উঠুন। বাংলাদেশকে যারা ভালোবাসেন তারা কণ্ঠ উচ্চকিত করুন। সংঘবদ্ধ হোন। পথে নামুন। তবেই বাঁচবে বাহাদুর শাহ পার্ক। বাঁচবো আপনি আমি সবাই।

পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, ২৫/১ পল্লবী, মিরপুর ১২, ঢাকা- ১২১৬
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: newsnotunsomoy@gmail.com
কপিরাইট © দৈনিক নতুন সময় সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft
DMCA.com Protection Status